1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. ittehadnews24@gmail.com : ইত্তেহাদ নিউজ২৪ : ইত্তেহাদ নিউজ২৪
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৯:২০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
পটুয়াখালীতে বোনরা পৈত্রিক সম্পত্তির দাবি করায় বোনদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে এলাকাছাড়া। নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠী)’র বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম মিন্টুর ইন্তেকাল বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন পদোন্নতিপ্রাপ্ত অতিরিক্ত আইজিগণ অবিলম্বে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের অসম যুদ্ধ বন্ধ করা সহ ফিলিস্তিনের পক্ষে সোচ্চার হোন ও সহযোগিতা করুন -ছারছীনার পীর ছাহেব। বাসায় খাবার রান্না করে এতিম শিশুদের মাঝে খাবার নিয়ে হাজির হলেন যশোর পুলিশ সুপার । রাজারবাগে ঈদের নামাজ আদায় করলেন আইজিপি ঈদের জামাত শেষে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের ছোবল থেকে বিশ্বের মুক্তি কামনায় প্রার্থনা। চৌগাছার আহাদ হত্যার রহস্য উদঘাটন ঘাতক ছেলে ও স্ত্রী গ্রেফতার, হত্যাকাজে ব্যবহৃত চাকু জব্দ আল আকসা মসজিদে ইসরাইলি হামলার নিন্দা প্রধানমন্ত্রীর পটুয়াখালী জেলার অসচ্ছল সংস্কৃতিসেবীদের মাঝে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের মাসিক কল্যাণ ভাতার চেক বিতরণ
শিরোনাম
বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন পদোন্নতিপ্রাপ্ত অতিরিক্ত আইজিগণ আল আকসা মসজিদে ইসরাইলি হামলার নিন্দা প্রধানমন্ত্রীর বরিশাল নগরীর সব মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনকে অর্থ সহায়তা এত বাড়ির মালিক, তবু পূর্বাচলে প্লট লাগবে কেন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ১ হাজার গাছ লাগানো হবে -প্রকল্প পরিচালক পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদে পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ আইজিপি’র নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন প্রকল্প এবং জলযানের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্তদের নগদ সহায়তা বিতরণ শুরু প্রধানমন্ত্রীর সব বীর মুক্তিযোদ্ধাই পাবেন উৎসব-বিজয় ও নববর্ষ ভাতা সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক ও দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ায় আন্তরিকভাবে কাজ করতে এনএসআই’র প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ফিলিস্তিনে ইহুদি বসতি এলো কিভাবে ও কেন?

  • আপডেট করা হয়েছে বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১৮৮ বার পড়া হয়েছে

ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের জন্য নতুন পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

তবে সবচেয়ে বিতর্কিত অংশ হলো পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বসতিকে অনুমোদন দেয়া।

অন্য বেশিরভাগ দেশ মনে করে এসব বসতি অবৈধ।

তাহলে এরা কারা?

ফিলিস্তিন বিরোধিতা করলে এদের সংখ্যা বাড়ছে কেন?

জাতিসংঘে বেশিরভাগ দেশ বলছে এসব বসতি হয়েছে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে। এমনকি সরকারিভাবে যুক্তরাষ্ট্রও এর সাথে একমত।

কিন্তু গত নভেম্বরে মিস্টার ট্রাম্প ঘোষণা দেন ইসরায়েলি বসতিকে তিনি আর আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন মনে করেননা।

তবে ট্রাম্পের পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করেছে ফিলিস্তিন।

কিন্তু অবৈধ হোক আর না হোক, বসতি আছে ও বাড়ছে।

এখানে দেখা যাচ্ছে ১৯৬৭ সালের যুদ্ধের সময় সেখানকার চিত্র কেমন ছিলো।

ইসরায়েলের অংশ নীল ও পশ্চিম তীর হলুদ।

ফিলিস্তিনিরা পশ্চিম তীরকে তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের অংশ মনে করে। কিন্তু ইসরায়েল যুদ্ধের পর থেকেই সেখানে বসতি বাড়াচ্ছে।

 

সত্তর, আশি ও নব্বিইয়ের দশকে বহু বসতি স্থাপন করেছে ইসরায়েল।

গত বিশ বছরে তাদের জনসংখ্যাও দ্বিগুন হয়েছে।

সেখানে পানি ও বিদ্যুৎ সেবা দিচ্ছে ইসরায়েল।

তাদের সুরক্ষা দেয় ইসরায়েলি সেনারা।

 

স্যাটেলাইট থেকে নেয়া চিত্রে দেখা যায় সময়ের সাথে সাথে কিভাবে বসতিগুলো বেড়েছে।

২০০৪ সালে গিভাট জাইভ বসতিতে দশ হাজারের মতো মানুষ ছিলো, আর এখন আছে সতের হাজার। এখন পশ্চিম দিকে আরও বাড়ছে।

বাড়ছে নতুন বাড়ি, উপাসনালয় ও শপিং সেন্টার।

বসতিগুলো নানা আকারের।

কিছু আছে যেখানে কয়েকশ মানুষ বাস করে।

সবচেয়ে বড়গুলোর একটিতে ৭৩ হাজার ৮০ জন বাস করে।

গত পনের বছরে তাদের সংখ্যা তিনগুণ হয়েছে।

 

ট্রাম্পের নতুন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে আগামী চার বছর আর কোনো বসতি হওয়া উচিত নয়।

তবে নতুন স্থাপনা না হলেও সেটেলারদের সংখ্যা বাড়বেই উচ্চ জন্ম হারের কারণে।

গড়ে ইসরায়েলি নারীদের এখন সাতটির বেশি সন্তান।

এমনিতেই ইসরায়েলে জন্ম হার ৩.১।

আর দখলকৃত এলাকার বসতিগুলোতে সেটি আরও বেশি।

অন্যদিকে ফিলিস্তিনিদের মধ্যে জন্ম হার কম।

এর প্রভাব পড়বে মোট জনসংখ্যাতেও।

সেখানে বসতি করা হচ্ছে সেটিকে ফিলিস্তিনিরা তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের অংশ মনে করে।

তারা মনে করে বসতিগুলো সরাতে হবে তাদের রাষ্ট্রের জন্য।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন